Projukti Protidin

(প্রযুক্তি প্রতিদিন) হুয়াওয়ে মেট ২০ প্রো এর বেশকিছু হ্যান্ডসেটে ডিসপ্লেতে ত্রুটি আন্তর্জাতিক বাজারে ইতিমধ্যে ধরা পড়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ত্রুটি থাকা ডিভাইস গ্রাহকদের পরিবর্তন করে দেওয়া হলেও বাংলাদেশের দুই ক্রেতার ফোন পাল্টে না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

বেশকিছু ব্যবহারকারী যুক্তরাজ্যে হুয়াওয়ের কমিউনিটি ফোরামে জানিয়েছে, উচ্চমূল্যের হুয়াওয়ে মেট ২০ প্রো স্মার্টফোনের ডিসপ্লের কিনারের দিক থেকে সবুজাভ আলোর আভা ডিসপ্লেতে ছড়িয়ে পড়ছে। কিছুটা অন্ধকারাচ্ছন্ন ব্যাকগ্রাউন্ডের ছবি চালু করলে এ সবুজ আলোর আভা স্পষ্টভাবে চোখে পড়ছে বলেও জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ব্যবহারকারীরা।

৭ দিন এর ‘রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি’ থাকার পরেও পরিবর্তন করে দেওয়া হয়নি বাংলাদেশের ক্রেতা চিকিৎসক সুরেশ নন্দী ও মাহাবুবুর রহমান এর ফোন। এমনকি ত্রুটিযুক্ত হ্যান্ডসেট নিয়ে সমাধানের জন্য গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে যোগাযোগ করলে উল্টো গ্রাহকের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেছেন হুয়াওয়ের কর্মীরা। হ্যান্ডসেট কিনে হয়রানির শিকার হওয়া দু’জন গ্রাহকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একটি অনলাইন শপের মাধ্যমে গত নভেম্বর মাসের ২১ তারিখ ৮৯ হাজার ৯৯০ টাকা মূল্যের হুয়াওয়ে ম্যাট২০ প্রো প্রি-অর্ডার করেন চিকিৎসক সুরেশ নন্দী। এক সপ্তাহেরও বেশি সময় পর হ্যান্ডসেটটি হাতে পান তিনি। হ্যান্ডসেট চালু করেই দেখতে পারেন ডিসপ্লের দুই দিকে সবুজ হয়ে আছে। ত্রুটি দেখেই পরেরদিন ঢাকার হুয়াওয়ের গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে যাই আমি। কিন্তু হ্যান্ডসেটে ত্রুটি থাকার বিষয়টি অস্বীকার করে ডিভাইসটি পাল্টে দিতে অস্বীকৃতি জানান সেবা কেন্দ্রের ম্যানেজার। রিপ্লেস না করে ডিভাইসটি মেরামত করে দিতে বললে সেই সেবাটুকুও দেওয়া হয়নি আমাকে।

হুয়াওয়ের কাছ থেকে প্রায় একই অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন আরেক চিকিৎসক মাহাবুবুর রহমান। একই মডেলের ডিভাইস ২৪ নভেম্বর প্রি-অর্ডার করে গত ২ ডিসেম্বর হাতে পান মাহাবুব। ৩ ডিসেম্বর হ্যান্ডসেট নিয়ে অভিযোগ জানাতে যান একই গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে। গত ১৯ ডিসেম্বর হ্যান্ডসেট রিপ্লেস বা ত্রুটির সমাধান না করেই ফিরিয়ে দেওয়া হয় তাকেও।

গ্রাহকদের অভিযোগ ও হয়রানির বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের জনসংযোগ বিভাগের ব্যবস্থাপক সুমন সাহা বলেন, মাহাবুবুর রহমানের সঙ্গে ইতোমধ্যে আমাদের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়েছে। রোববার গ্রাহকদেরকে আমাদের কার্যালয়ে আসার জন্য বলা হয়েছে সার্ভিস বিভাগের পক্ষ থেকে। আশাকরি তাদের সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *