Projukti Protidin

(প্রযুক্তি প্রতিদিন) অ্যাকশন ধাঁচের ফার্স্ট পারসন শুটিং গেম ‘ভুর্ডান’। এই গেমটি ফ্রান্সের ছোট একট শহরে রক্তয়ী প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ঘটনায় নির্মিত হয়েছে। গেমটি যৌথভাবে নির্মাণ করেছে এমটুএইচ গেম স্টুডিওস এবং ব্ল্যাকমিল গেমস।
এ গেমটিতে উঠে এসেছে ছোট একটি শহরে ব্যতিক্রমধর্মী এক যুদ্ধের পরিস্থিতি। শুরুতে ভুর্ডান গেমটি শুধু মাইক্রোসফট উইন্ডোজ-চালিত পিসির জন্য অবমুক্ত করেছে নির্মাতারা। তবে গেমটি এক্সবক্স ও প্লে স্টেশনসহ অন্যান্য গেমিং কনসোলের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে।
প্রায় ১০০ বছর আগের ঘটনা। চার দিকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের দামামা। উত্তর-পূর্ব ফ্রান্সের ছোট একটি শহর। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ধ্বংসাত্মক রেশ ছড়িয়ে পড়ে সেখানেও। তবে পুরোপুরি তখনো যুদ্ধ পরিস্থিতি হয়নি শহরটিতে। মানুষের মনে চরম উৎকণ্ঠা। এমন সময় শহরটিতে রাজনৈতিক সঙ্কট দেখা দেয়। শাসকেরা জড়িয়ে পড়ে যুদ্ধে। এর ফলে শহরের অর্থনৈতিক অবকাঠামোর সাথে ভেঙে যায় মানুষের স্বপ্ন। একটু একটু করে চার দিকে ছড়িয়ে পড়ে যুদ্ধ আর দাঙ্গা। এই যুদ্ধে মারা যেতে থাকে সাধারণ মানুষ। পুরোপুরি ধ্বংসের এক নগরীতে পরিণত হতে থাকে ভুর্ডান। তবে প্রতিবাদী হয়ে ওঠে সাধারণ মানুষ। এমন প্রোপটে নির্মিত গেমটিতে গেমারকে খেলতে হবে একজন সাধারণ সৈনিকের বেশে। এ সময় গেমারকে যুদ্ধের পরীা নিতে যেতে হবে শহরের বাইরে। যেখানে ফ্রান্স, জার্মানি ও ব্রিটিশ সৈন্যদের মিলিতভাবে তৈরি একটি কেন্দ্রে প্রশিণ গ্রহণ করে গোপনে অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ফিরতে হবে ভুর্ডান শহরে। গেমারকে মোট ৩২ জনের একটি সৈন্য দল নিয়ে গেমে অবতীর্ণ হতে হবে। যেখানে আবার চারজনের একটি খুদে দল থাকবে। গেমারকে এমন যুদ্ধের মধ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা করে একে একে স্বাধীন করতে হবে শহরের বিভিন্ন অংশ। এ জন্য দলের অন্য সদস্যদের সাথে যুদ্ধের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে গেমারকে। ফার্স্ট পারসন শুটিং গেমটিতে নিজ জীবন বাজি রেখে যুদ্ধেেত্র একজন গেমারকে লড়তে হবে। গেমটিতে শহরের ছোট ছোট অংশ দখলে নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে গেমারকে। এর ফলে গেমার পাবে বোনাস পয়েন্ট এবং আনলক হবে নতুন গেম লেভেল। গেমে অগ্রসর লেভেলে যুদ্ধ করতে গেমার পাবে আগ্নেয়াস্ত্র। রাইফেল, ছুরি, বন্দুক ও পৌরাণিক আগ্নেয়াস্ত্রের সমন্বয়ে যুদ্ধেেত্র লড়তে হবে গেমারকে। গেমটিতে ব্যবহৃত আধুনিক প্রযুক্তির শব্দ ও গ্রাফিক্স গেমারকে প্রকৃত বাস্তবতার সামনে নিয়ে যাবে।

প্রয়োজনীয় হার্ডওয়্যার : ইন্টেল কোর টু ডুয়ো ই৪৩০০ সিরিজের, ২.৪০ গিগাহার্জ বা এএমডি সিপিইউ ৬৪ এক্স২ ডুয়ালকোর ৪০০০ পাস সিরিজের প্রসেসর, র‌্যাম : ৪ গিগাবাইট, গ্রাফিক্সকার্ড : ডাইরেক্ট এক্স-৯, এনভিডিয়া জি ফোর্স ৮৬০০ জিটি অথবা এএমডি র‌্যাডন এইচডি ২৬০০ সিরিজের ১ গিগাবাইট এবং ফ্রি হার্ডডিস্ক স্পেস : ৪ গিগাবাইট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *